নবম-দশম শ্রেণির পদার্থবিজ্ঞান অধ্যায় ৪ (কাজ, ক্ষমতা ও শক্তি) এর প্রয়োজনীয় সকল সংজ্ঞা। - আস্ক পড়ুয়া
0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
165 বার প্রদর্শিত
"পদার্থবিজ্ঞান" বিভাগে করেছেন (2.1k পয়েন্ট)
সম্পাদিত করেছেন

১. কাজ কাকে বলে?

২. ধনাত্মক কাজ কাকে বলে?

৩. ঋণাত্মক কাজ কাকে বলে?

৪. শূণ্য কাজ কাকে বলে?

৫. শক্তি কাকে বলে?

৬. যান্ত্রিক কাজ কাকে বলে?

৭. গতিশক্তি কাকে বলে?

৮. বিভবশক্তি কাকে বলে?

৯. অনবায়নযোগ্য শক্তি কাকে বলে?

১০. নবায়নযোগ্য শক্তি কাকে বলে?

১১. জলবিদ্যুৎ কাকে বলে?

১২. সৌরশক্তি কাকে বলে?

১৩. বায়ুশক্তি কাকে বলে?

১৪. ভূ-তাপীয় শক্তি কাকে বলে?

১৫. ম্যাগমা কাকে বলে?

১৬. সবুজ ঘরের গ্যাস কাকে বলে?

১৭. স্প্রিং ধ্রুবক কাকে বলে?

১৮. রাসায়নিক শক্তি কাকে বলে?

১৯. সঞ্চায়ক কোষ কাকে বলে?

২০. ফটোগ্রাফিক কাগজ কাকে বলে?

২১. নিউক্লিয়ার চুল্লি কাকে বলে?

২২. ফিউশন কাকে বলে?

২৩. কন্ট্রোল রড কাকে বলে?

২৪. ক্ষমতা কাকে বলে?

২৫. ওয়াট কাকে বলে?

২৬. প্রদত্ত ক্ষমতা কাকে বলে?

২৭. প্রদত্ত শক্তি কাকে বলে?

২৮. কর্মদক্ষতা কাকে বলে?

1 উত্তর

0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (2.1k পয়েন্ট)
সম্পাদিত করেছেন

১. কাজ= কোনো বস্তুর উপর বল প্রয়োগের ফলে যদি বস্তুটির সরণ ঘটে তাহলে বল ও বলের দিকে সরণের উপাংশের গুণফলকে কাজ বলে।

২. ধনাত্মক কাজ= কোনো বস্তুর উপর বল প্রয়োগ করার ফলে যদি বলের দিকে সরণ ঘটে তবে যে কাজ সম্পন্ন হয় তাকে ধনাত্মক কাজ বলে।

৩. ঋণাত্মক কাজ= কোনো বস্তুর উপর বল প্রয়োগ করার ফলে যদি বলের বিপরীত দিকে সরণ ঘটে তবে যে কাজ সম্পন্ন হয় তাকে ঋণাত্মক কাজ বলে।

৪. শূণ্য কাজ= কোনো বস্তুর উপর বল প্রয়োগের ফলে যদি বস্তুটির বলের দিকে সরণ না ঘটে অর্থাৎ বলের দিকে বস্তুর সরণের কোনো উপাংশ না থাকে তবে তাকে শূণ্য কাজ বলে।

৫. শক্তি= কাজ করার সামর্থ্যকে শক্তি বলে।

৬. যান্ত্রিক কাজ= কোনো বস্তুর মাঝে নিহিত গতিশক্তি ও বিভবশক্তির মোট পরিমাণকে যান্ত্রিক শক্তি বলে।

৭. গতিশক্তি= কোনো গতিশীল বস্তু তার গতির জন্য কাজ করার যে সামর্থ্য অর্জন করে তাকে গতিশক্তি বলে।

৮. বিভবশক্তি= কোনো বস্তু তার অবস্থা বা অবস্থানের পরিবর্তনের জন্য কাজ করার যে সামর্থ্য অর্জন করে তাকে ঐ বস্তুর বিভবশক্তি বলে।

৯. অনবায়নযোগ্য শক্তি= যেসকল শক্তির উৎস একবারমাত্র ব্যবহারযোগ্য অর্থাৎ নতুন করে সৃষ্টি করা বা হওয়া সম্ভব না সেসকল শক্তিকে অনবায়নযোগ্য শক্তি বলে।

১০. নবায়নযোগ্য শক্তি= যেসকল শক্তির উৎস স্বল্প সময়ের ব্যবধানে পুনরায় ব্যবহার করা যায় এবং এর ফলে শক্তিটির উৎস নিঃশেষ হয়ে যায় না তাকে নবায়নযোগ্য শক্তি বলে।

১১. জলবিদ্যুৎ= নদীতে বাঁধ দিয়ে নদীর পানির প্রবাহ বা স্রোতকে কাজে লাগিয়ে যে তড়িৎ বা বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হয় তাকে জলবিদ্যুৎ বলে।

১২. সৌরশক্তি= সূর্যে সংঘটিত ফিউশন প্রক্রিয়ার ফলে সূর্য থেকে যে শক্তি পাওয়া যায় তাকে সৌরশক্তি বলে।

১৩. বায়ুশক্তি= পৃথিবীর পৃষ্ঠে তাপমাত্রার পার্থক্যের কারণে বায়ুপ্রবাহজনিত যে গতিশক্তি তৈরি হয় তাকে বায়ুশক্তি বলে।

১৪. ভূ-তাপীয় শক্তি= ভূ-গর্ভে বিদ্যমান প্রচণ্ড তাপ থেকে যে শক্তি পাওয়া যায় তাকে ভূ-তাপীয় শক্তি বলে।

১৫. ম্যাগমা= ভূ-অভ্যন্তরে প্রচণ্ড তাপে গলিত শিলাকে ম্যাগমা বলে।

১৬. সবুজ ঘরের গ্যাস= কার্বন ডাইঅক্সাইডসহ যেসকল গ্যাস বৈশ্বিক উষ্ণায়ন তথা গ্রিন হাউস ইফেক্টের জন্য দায়ী তাদের গ্রিন হাউস গ্যাস বলে।

১৭. স্প্রিং ধ্রুবক= স্প্রিং এর একক দৈর্ঘ্য পরিবর্তনের জন্য যে বল প্রয়োগ করতে হয় তাকে ঐ স্প্রিং এর স্প্রিং ধ্রুবক বলে।

১৮. রাসায়নিক শক্তি= তড়িৎ কোষে রাসায়নিক বিক্রিয়ার মাধ্যমে উৎপন্ন শক্তিকে রাসায়নিক শক্তি বলে।

১৯. সঞ্চায়ক কোষ= যেসব কোষে রাসায়নিক শক্তি তড়িৎ শক্তিতে রূপান্তরিত হয় তাকে সঞ্চায়ক কোষ বলে।

২০. ফটোগ্রাফিক কাগজ= যেসব কাগজ আলোর সংস্পর্শে আসলে খুব অস্পষ্ট প্রতিবিম্ব তৈরি করতে পারে যা পরে স্পষ্ট করে নিতে হয় তাকে ফটোগ্রাফিক কাগজ বলে।

২১. নিউক্লিয়ার চুল্লি= আয়ত্তাধীন ফিশন প্রক্রিয়ায় শক্তি উৎপাদনের জন্য বিভিন্ন যন্ত্রপাতির সংমিশ্রণে যে যন্ত্রটি তৈরি করা তাকে নিউক্লীয় চুল্লি বলে।

২২. ফিউশন= যে নিউক্লিয়ার বিক্রিয়ায় দুইটি কম ভরের নিউক্লিয়াস একীভূত হয়ে বৃহত্তর পারমাণবিক ভরের মৌলের সৃষ্টি করে তাকে ফিউশন বলে।

২৩. কন্ট্রোল রড= নিউক্লিয়ার রিঅ্যাক্টরে নিউক্লিয়ার রিয়েকশন নিয়ন্ত্রণ করার জন্য নিউট্রন শোষণে যে রড ব্যবহৃত হয় তাকে কন্ট্রোল রড বলে।

২৪. ক্ষমতা= একক সময়ে কোনো ব্যাক্তি বা বস্তু দ্বারা কৃতকাজের পরিমাণকে ক্ষমতা বলে।

২৫. ওয়াট= একক সময়ে এক জুল কাজ করার বা শক্তির রূপান্তরের হারকে এক ওয়াট বা সংক্ষেপে ওয়াট বলে।

২৬. প্রদত্ত ক্ষমতা= ইঞ্জিনের মোট ক্ষমতাকে প্রদত্ত ক্ষমতা বলে।

২৭. প্রদত্ত শক্তি= প্রদত্ত ক্ষমতাকে সময় দ্বারা গুণ করলে তাকে প্রদত্ত শক্তি বলে।

২৮. কর্মদক্ষতা= কোনো যন্ত্রের কার্যকর ক্ষমতা ও প্রদত্ত ক্ষমতার অনুপাত বা কার্যকর শক্তি ও প্রদত্ত শক্তির অনুপাতকে ঐ যন্ত্রের কর্মদক্ষতা বলে।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
1 উত্তর 122 বার প্রদর্শিত
0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
1 উত্তর 179 বার প্রদর্শিত
"আস্ক পড়ুয়ায় স্বাগতম" আস্কপড়ুয়া একটি জ্ঞানমূলক ওয়েবসাইট।এর মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে জ্ঞানের আলোকে ছড়িয়ে দেওয়া।এই কমিউনিটি তে যারা যুক্ত তারা জ্ঞানার্জনে উন্মুখ।যেকোনো বিষয় সম্পর্কে সঠিক তথ্য প্রদানে পড়ুয়া বোর্ড সহযোগিতা প্রদানে তৎপর।

1.4k টি প্রশ্ন

1.7k টি উত্তর

1.4k টি মন্তব্য

2.9k জন সদস্য

...