৯ম শ্রেণির ২১তম সপ্তাহের বাংলা অ্যাসাইনমেন্টের সমাধান চাই - আস্ক পড়ুয়া
0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
66 বার প্রদর্শিত
"বাংলা" বিভাগে করেছেন (12 পয়েন্ট)
৯ম শ্রেণির ২১তম সপ্তাহের বাংলা অ্যাসাইনমেন্টের সমাধান চাই

২৯ তারিখের মধ্যে একটু দিয়েন। ধন্যবাদ।

1 উত্তর

0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (1.6k পয়েন্ট)
সম্পাদিত করেছেন

                                                    মাস্ক পরুন, সুরক্ষিত থাকুন

নিজস্ব প্রতিবেদক, সুমনা, দৈনিক ইত্তেফাক, রামকৃষ্ণ মিশন রোড, ঢাকা। বাংলাদেশ একটি ছোট আয়তনের দেশ। এদেশে প্রায় ২০কোটি মানুষ বাস করে। ঘনবসতিপূর্ণ এই দেশে করোনা ভাইরাস ছড়ানোর ঝুঁকি অন্যান্য কম ঘনবসতিপূর্ণ দেশের তুলনায় অনেক বেশি। এই ভাইরাসের ভ্যাকসিন এখনো আবিষ্কৃত না হওয়ায় সচেতনতাই এটি প্রতিরোধের একমাত্র মাধ্যম। গত ২৫শে নভেম্বর, ২০২১ তারিখে নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁ উপজেলাতে গিয়ে দেখা গেল যে ৯০ শতাংশ মানুষই মাস্ক পরেন না। সাধারণ জনগণের সাথে কথা বলে জানা গেল যে, তাদের ধারণা করোনা ভাগ্যে থাকলে মাস্ক পরলেও হবে, আর মাস্ক না পরলেও হবে। আর ভাগ্যে না থাকলে মাস্ক পরলেও হবে না। না পরলেও হবে না। এই ধরনের ধারণা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। ধর্মীয় দৃষ্টিতে চিন্তা করলেও আল্লাহ তায়ালা আমাদের যেকোনো বিপদে প্রথমে নিজেকে সর্বাত্মক চেষ্টা চালাতে বলেছেন এবং আল্লাহর উপর ভরসা রাখতে বলেছেন। আর বৈজ্ঞানিক দৃষ্টিতে চিন্তা করলে মাস্ক ছাড়া বাইরে বের হওয়া বর্তমানে একটি ভয়ংকর ব্যাপার। কারণ- বিজ্ঞানীরা বলেছেন, "করোনা বাতাসের মাধ্যমেও ছড়ায়।" অর্থাৎ করোনা ভাইরাস মূলত হাঁচি-কাশির মাধ্যমে বাতাসে ছড়ায় এবং নিশ্বাসের সাথে দেহে প্রবেশ করে। এরপর এটি গলা, শ্বাসনালী এবং ফুসফুসের কোষে আঘাত করে এবং সেসব জায়গায় করোনার কারখানা তৈরি করে। পরে শরীরের বিভিন্ন জায়গায় নতুন ভাইরাস ছড়িয়ে দেয় এবং আরো কোষকে আক্রান্ত করে। তাই মাস্ক পরে যেমন বাতাসের জীবাণু থেকে সুরক্ষিত থাকা যায়, তেমনি যদি কেউ ভাইরাসে আক্রান্ত হয় তাহলে তার হাঁচি বা কাশির ফলে জীবাণু বাতাসে ছড়াতে পারে না বরং আক্রান্ত ব্যক্তির মাস্কেই থেকে যায়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও বারবার বলে আসছে, "মাস্ক পরলে জীবাণুর ড্রপলেট থেকে সুরক্ষা পাওয়া সম্ভব।" সাম্প্রতিক গবেষণায় প্রকাশ পেয়েছে, করোনা মোকাবিলায় মাস্কের বিকল্প নেই। মাস্ক ছাড়া বাইরে বেরোলে করোনায় সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা অনেকাংশে বেড়ে যায়। তাই আমাদের অতি অবশ্যই মাস্ক পরিধান করতে হবে। আর যেকোনো ধরনের মাস্ক ব্যবহার করলেই হবে না। তিন স্তরবিশিষ্ট কাপড়ের মাস্ক পড়তে হবে। তাহলে করোনা সংক্রমণের আশংকা কমে যাবে। এখন পর্যন্ত যত করোনার ভ্যাকসিন আবিষ্কৃত হয়েছে, সেগুলোর কোনোটাই করোনা প্রতিহত করতে সক্ষম না। তাই করোনা বর্তমানে একটি প্রতিরোধযোগ্য ভাইরাস, প্রতিহতযোগ্য নয়। আর এই প্রতিরোধে সবচেয়ে বড় ভূমিকা রাখছে 'মাস্ক'। কারণ আমাদের মতো জনবহুল দেশে সরকার যথাসাধ্য চেষ্টা করেও সবাইকে ভ্যাক্সিনের আওতায় আনতে পারেনি। তাই আসুন সবাই মাস্ক পরিধান করি এবিং অন্যকে মাস্ক পরিধান করতে উৎসাহিত করি।

প্রতিবেদনের শিরোনাম      : মাস্ক পরুন, সুরক্ষিত থাকুন

প্রতিবেদকের নাম ও ঠিকানা: সুমনা, রামকৃষ্ণ মিশন রোড, ঢাকা।
প্রতিবেদন তৈরির স্থান       : সোনারগাঁ, নারায়ণগঞ্জ।

প্রতিবেদন তৈরির তারিখ     : ২৫শে নভেম্বর, ২০২১

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
0 টি উত্তর 79 বার প্রদর্শিত
0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
1 উত্তর 145 বার প্রদর্শিত
0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
1 উত্তর 40 বার প্রদর্শিত
0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
1 উত্তর 82 বার প্রদর্শিত
0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
1 উত্তর 88 বার প্রদর্শিত
"আস্ক পড়ুয়ায় স্বাগতম" আস্কপড়ুয়া একটি জ্ঞানমূলক ওয়েবসাইট।এর মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে জ্ঞানের আলোকে ছড়িয়ে দেওয়া।এই কমিউনিটি তে যারা যুক্ত তারা জ্ঞানার্জনে উন্মুখ।যেকোনো বিষয় সম্পর্কে সঠিক তথ্য প্রদানে পড়ুয়া বোর্ড সহযোগিতা প্রদানে তৎপর।

1.2k টি প্রশ্ন

1.5k টি উত্তর

1.3k টি মন্তব্য

421 জন সদস্য

...